admin
নভেম্বর ১১, ২০২০
  • No Comments

    চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর হাসপাতাল রোড ডাবল হচ্ছে

     
    ফয়সাল আজম অপু, চাঁপাইনবাবগঞ্জঃ
    চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর মডেল থানার সামনে থেকে সদর হাসপাতাল গেট পর্যন্ত ডিবিসি এবং সিসি দ্বারা পুনর্বাসন ও ডাবল লেন সড়ক (আ.আ.ম. মেসবাহুল হক বাচ্চু ডাক্তার সড়ক) নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে। শনিবার সকালে নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মঈনুদ্দীন মন্ডল।
    এ উপলক্ষে পুরাতন বাজার এলাকায় এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভা। পৌর মেয়র মোহাম্মদ নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে আয়োজিত অনুষ্ঠানে স্থানীয়দের মধ্যে বক্তব্য দেন- চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার সাবেক ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট একরামুল হক, মেসবাহুল জাকের জঙ্গী। কাউন্সিলরদের মধ্যে বক্তব্য দেন- প্যানেল মেয়র-১ সাইদুর রহমান, কাউন্সিলর জিয়াউর রহমান আরমান, নিখিল ও আনোয়ারা খাতুন পলি। এছাড়া বক্তব্য দেন- চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী সাদেকুল ইসলাম ও জেলা পরিষদ সদস্য রফিকুল ইসলাম।
    নির্বাহী প্রকৌশলী সাদেকুল ইসলাম তার বক্তব্যে জানান, এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি), ওপেক ফান্ড ফর ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট (ওএফআইডি) এবং বাংলাদেশ সরকার (জিওবি)’র অর্থায়নে “তৃতীয় নগর পরিচালন ও অবকাঠামো উন্নতিকরণ (সেক্টর) প্রকল্প” (ইউজিআইআইপি-৩)’র অধীনে ৩য় পর্যায়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার একটি প্যাকেজের অনুমোদন পাওয়া গিয়েছে। প্যাকেজে রাস্তা রয়েছে ৮টি, যার দৈর্ঘ্য প্রায় ৮ কিলোমিটার এবং ড্রেন রয়েছে ১০টি, যার দৈর্ঘ্য ৩ দশমিক ৮৮ কিলোমিটার। এই প্যাকেজের চুক্তিমূল্য ১০ কোটি ৩২ লাখ ৫১ হাজার ৯১৫ টাকা। তিনি বলেন, এই প্যাকেজের অধীন আ.আ.ম. মেসবাহুল হক বাচ্চু ডাক্তার রাস্তার (চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর মডেল থানা হতে সদর হাসপাতাল গেট পর্যন্ত ডিবিসি ও সিসি দ্বারা পুনর্বাসন ও ৫০০ মিটার ডাবল লেন) রাস্তা নির্মাণ কাজের ব্যয় ধরা হয়েছে ১ কোটি ৫৫ লাখ ১৬ হাজার ৪০৬ টাকা। এই রাস্তাটির একদিক পিচ কার্পেটিং ও অন্যদিক ঢালাই দিয়ে তৈরি করা হবে। মাঝখানে দৃষ্টিনন্দন ডিভাইডার থাকবে। আগামী ফেব্রুয়ারি মাসের শেষে এই রাস্তা নির্মাণ সম্পন্ন হবে।
    উল্লেখ্য, জেলা শহরের প্রাণকেন্দ্র এই রাস্তায় রয়েছে সদর মডেল থানা, রেজিস্ট্রেশন অফিস, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (নবাবগঞ্জ) সার্কেল অফিস এবং সদর আধুনিক হাসপাতাল। কিন্তু রাস্তাটি সরু ও ভাঙাচোরা থাকায় যানজট সৃষ্টি হয়। হাসপাতালে জরুরি কোনো রোগী বহন করতে ভোগান্তিতে পড়তে হয়। ডাবল লেনের এই রাস্তা নির্মাণ শেষ হলে সেই সমস্যার সমাধান হবে। গড়ে উঠবে মনোরম পরিবেশ।
    এদিকে শহরকে বাসযোগ্য করে গড়ে তুলতে বিভিন্ন রাস্তা সম্প্রসারণ করা হবে বলে অনুষ্ঠানে মেয়র জানান। এ কাজে সহযোগিতার আশ্বাস দেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মঈনুদ্দীন মন্ডল।